Want create site? Find Free WordPress Themes and plugins.

আওয়ামী লীগের প্রায় সব সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন শেষ। সম্মেলনেরই দিন প্রতিটি সংগঠনের চেয়ারম্যান-সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলটির সহযোগী সংগঠনগুলো থেকে বাদ পড়েছেন বিতর্কিত নেতারা। এবার পালা মূল সংগঠনের কাউন্সিলের ।

আগামী ২০-২১ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল। এ উপলক্ষে সার্বিক প্রস্তুতি গুছিয়ে এনেছে দলটি। সম্মেলন ঘিরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয় এবং ধানমন্ডির দলীয় কার্যালয় নেতাকর্মীদের পদচারণায় মুখর থাকে সবসময়। সেখানে ভিড় করা নেতাকর্মীদের মধ্যে ঘুরেফিরে আলোচনায় আসছে আওয়ামী লীগের পরবর্তী সাধারণ সম্পাদককের নেতৃত্বে কে আসছেন।

দলীয় সূত্র মতে জানা যায়, আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা বলছেন দলের ৮১ সদস্যবিশিষ্ট কার্যনির্বাহী সংসদে এবার ব্যাপক রদবদল আনা হবে। বির্তর্কিত নেতাদের বাদ দিয়ে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতাদের নেতৃত্বে আনা হবে।

কেন্দ্রীয় কমিটিতে ব্যাপক পরিবর্তনের আভাস মিললেও দলটির শীর্ষ পদে কোনো পরিবর্তন আসবে না। দলের সভাপতি পদেই থাকছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সভাপতি পদে শেখ হাসিনার আসাটা নিশ্চিত করেছেন দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নেতাকর্মীদের মধ্যে আস্থা আর ভালোবাসার প্রতীক তিনি।

আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন সামনে রেখে দলের সবস্তরে এখন আলোচনা সাধারণ সম্পাদক পদে কে আসছেন তা নিয়ে।
আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা যায়, সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছে বর্তমান আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি সাবেক বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন এবং বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়াম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি অতিতে অত্যান্ত দক্ষতার ও সততার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ থেকে রাজনৈতিক মহলে দক্ষ একজন নেতা হিসেবে পরিচিত রয়েছে। তিনি মোহাম্মদপুর এলাকার সংসদ সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। চলতি মেয়াদে তাকে সংসদ সদস্য পদ থেকে বিরত রাখছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ থেকেই রাজনৈতিক বিশেজ্ঞরা মনে করেন দলের সভাপতি তাকে আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের পদটি দিতে পারেন।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনে দলের সাধারণ সম্পাদক পদ যে পাবেন সে কোন সংসদ সদস্য বা মন্ত্রী দায়িত্ব পালন করতে পাবেন না। যারা বর্তমানে দলীয় সংসদ সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করছে তাদের দলের সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত করা হবে না।

Did you find apk for android? You can find new Free Android Games and apps.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here